প্রথমবারের মত রেলে গণ বিবাহ!

ইন্দোনেশিয়ার প্রাচীন শহর ইয়োগিকার্তার বিখ্যাত টুগো রেল স্টেশনে সাত জন জুটি এক গণ বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। খবর দ্য জাকার্তা পোস্টের। জানা যায়, ৬ সেপ্টেম্বরের এই গণ বিবাহের পাত্রপাত্রী বিভিন্ন পটভূমি থেকে এসেছেন। ইন্দোনেশিয়ার তারোফ ফোরাম, ইয়োগিকার্তার প্রশাসন এবং ইয়োগিকার্তার সরকারি ট্রেন কোম্পানি পিটি কাইয়ের সাথে মিলে অভিনব এই বিবাহের আয়োজন করেছেন। টুগো স্টেশনে গণ বিবাহ: ভবিষ্যতের ভালোবাসার স্টেশন শীর্ষক এক কর্মসূচির মাধ্যমে কয়েকটি ধাপের মাধ্যমে এই পাত্র পাত্রীদের নির্বাচন করা হয়। এই বিয়েতে দম্পতিদের কোন ধরনের টাকাই খরচ করতে হয়নি। আয়োজন প্রতিষ্ঠানগুলো যৌতুক বিহীন এই বিয়েতে বিয়ের আংটি, বিয়ের পোশাক, কাজীর খরচ, বিয়ের উপহার এবং থাকার জন্য হোটেল সহ Continue reading প্রথমবারের মত রেলে গণ বিবাহ!

আগে মাতৃত্বের পরীক্ষা, তারপর বিয়ে!

বিয়ের আগে অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার মানেই হলো ‘গেল গেল জাত গেল’ শোরগোল, সভা, সালিশ ইত্যাদি। কিন্তু প্রতিবেশি দেশ ভারতের এক আদিবাসী সম্প্রদায়ে বিয়ের পূর্বশর্ত মাতৃত্বের পরীক্ষায় পাশ করতে হবে। দেশটির পশ্চিমবঙ্গের এক প্রত্যন্ত অঞ্চলে এমন রীতি প্রচলিত রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের আলিপুরদুয়ার জেলার উত্তরপ্রান্তে ভুটান সীমান্তে একটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বাস। নাম ‘টোটো’। টো টো সম্প্রদায়ের মেয়েদের বিয়ের আগে অন্তঃসত্ত্বা বা মা হওয়াটা বাধ্যতামূলক। সেখানে মাতৃত্বই দেয় পছন্দের পুরুষকে বিয়ের অধিকার। ওই অঞ্চলটি টোটোপাড়া নামে পরিচিত। অধিবাসী মাত্র দেড় হাজারের মতো। টোটো সমাজে বিয়ের নিয়ম হলো কোন মেয়ে একজন পুরুষকে পছন্দ করবে। তারপর দুই পরিবারের সম্মতিতে ওই পুরুষের সঙ্গে একবছর সহবাস করতে হবে। এরমধ্যে Continue reading আগে মাতৃত্বের পরীক্ষা, তারপর বিয়ে!

ভারতের যেখানে ‘লিভ-ইন’ বৈধ

‘লিভ-ইন’ বা বিবাহপূর্ব নারী-পুরুষ একসঙ্গে থাকা নিয়ে ভারতীয় সমাজের বিতর্কের শেষ নেই। এমনকী সুপ্রিম কোর্টও এ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করেছে। অথচ, ভারতের রাজস্থানের জয়পুরের নয়াবাস গ্রামে গ্লসিয়া জনগোষ্ঠী কয়েক শতক ধরে ‘লিভ-ইন’ সম্পর্ক পালন করে আসছে। এমনকি শুধু প্রাপ্ত বয়স্করাই নয়, সেখানে লিভ-ইন করতে পারে অল্প বয়সী, বিধবা বা বিবাহ বিচ্ছিন্নরাও। পুরুষ ও নারীর মিলন মানেই যে তাকে বিবাহের রূপ দিতে হবে এটা মনে করে না গ্লসিয়ারা। তাদের মতে, বিবাহের অর্থ বংশ বৃদ্ধি। সুতরাং, বিয়ের আগে পুরুষ এবং নারী একে অপরের সঙ্গে বসবাস করে যদি দেখে তারা সন্তান উৎপাদনে সক্ষম, তবেই তারা বিবাহের পথে অগ্রসর হতে পারে। এমনকী, সন্তানের জন্ম দেওয়ার Continue reading ভারতের যেখানে ‘লিভ-ইন’ বৈধ

বিয়েতে লাল শাড়ি পরার কারণ

প্রাচীনকাল থেকেই বিয়েতে লাল শাড়ির ব্যবহার চলছে ৷ আধুনিক বিজ্ঞানের মতে, রঙ মানুষের মনকে প্রভাবিত করতে পারে। যেমন কোন হাল্কা বা সাদা রঙ মনকে শান্ত ও স্নিগ্ধ করে তোলে। ঠিক তেমনই কৃষ্ণচূড়ার লাল রঙ প্রেমিক প্রেমিকার মনকে রাঙিয়ে তুলতে সক্ষম। আবার কালো রঙ নির্বাক শোক ও প্রতিবাদের ভাষা হিসেবেই ধরা হয়। সেক্ষেত্রে বিয়ের দিনে লাল বেনারসী পরিহিতা নববধূকে দেখে যেমন মোহময়ী লাগে তেমনই বরের চোখও ঘনিয়ে আসে ভালবাসার নেশায়। তখনই বুকের মধ্য জ্বলে ওঠে প্রেমের আগুণ এবং উথলে ওঠে আবেগ। অর্থাৎ লাল রঙ যেন মানুষের কামনা-বাসনা, ভালবাসার মূর্ত প্রতীক হয়ে ওঠে ৷   Likes(0)Dislikes(0)Click Here to get update news alwaysপ্রতি Continue reading বিয়েতে লাল শাড়ি পরার কারণ