**বিবাহ**

          বিবাহ হলো নারী এবং পুরুষের মধ্যে সবচেয়ে প্রাচীতম “বন্ধন” । এই বিবাহের মাধ্যমে জন্মগ্রহণকারী মানব সন্তান বৈধ স্বীকৃতি পায় । বৈবাহিক সম্পর্কের বিষয়টি মুসলিম জাতির ইতিহাসে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিক । আমরা যদি আদি মানুষের ইতিহাস বা পৃথিবীতে মানুষের আগমনের কথা জানতে চাই তাহা হলে দেখতে পাই যে, পৃথিবীর প্রথম মানব- মানবী হলেন “হযরত আদম (আ:) ও হাওয়া (আ:)” । তাদের বন্ধন বা বৈবাহিক সম্পর্কের মাধ্যমে পৃথিবীতে মানুষের আগমন ঘটেছে এবং আজ পৃথিবীতে কোটি কোটি মানুষ । তাই প্রাচীন রীতির আলোকে মানুষ তাহার জৈবিক চাহিদা নিবারণের জন্য এবং বৈধ ভাবে সন্তান ধারণের জন্য বিবাহের রীতি আজও বিদ্যমান ।

         বিবাহ নারী পুরুষের ভিতর  স্ব-স্ব অধিকার সৃষ্টি করিয়া থাকে । একজন পুরুষ এবং একজন  নারীর মধ্যে চুক্তি হইয়া থাকে এবং উক্ত চুক্তির ফল স্বরূপ একজন পুরুষ এবং একজন নারী বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হইয়া পরস্পরের দায়-দায়িত্ব পালন করে । বিবাহের ফলে সন্তান জন্ম হইলে তাহার সাথে স্বামী-স্ত্রী অর্থাৎ যাহার এই সন্তানের পিতা-মাতা এইসব ব্যক্তিবর্গের ভিতর পরস্পরের অধিকার সৃ্ষ্টি হয় । বিবাহ ব্যতীত সন্তান জন্মিলে এই সন্তানের পিতা-মাতার বিবাহ সামাজিক স্বীকৃতির অভাবে আইনগত অবস্থান থাকে না । নারী এবং পুরুষ এই দুইজন একে অন্যের স্ত্রী এবং স্বামী হিসেবে বিনা বাধায় কালাতিপাত করিতে পারে ।

      বিবাহের জন্যই কাহারও স্বামী অন্যের স্বামী এবং কাহারও স্ত্রী অন্যের স্ত্রী বলিয়া সমাজে স্বীকৃতি পাইতে পারে না । বিবাহ সামাজিক জীবনে নারী পুরুষের ভিতর নিয়ন্ত্রন প্রতিষ্ঠিত হয় । বিবাহ প্রক্রিয়ায় নারী-পুরুষের ভিতর মিলনের ব্যবস্থা না থাকিলে তাহাদের ভিতর ধারাবাহিক জী্বন জিন্দেগী ব্যাহত হইয়া বিশৃঙ্খলার অভিশাপ থেকে সমাজকে রক্ষা করা যাইত না । পৃথিবীর যে কোন সমাজের বা যে কোন ধর্মে বিবাহ তাই আর্শীবাদ ।

Likes(1)Dislikes(0)

Click Here to get update news always
প্রতি মুহুর্তের আপডেট পেতে এখানে ক্লিক করন
আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন