রেসিপি

রেসিপি হচ্ছে হরেক রকম রান্না নিয়ে লেখা রান্নার বই যেখানে রান্নার নিয়ম প্রণালী সন্নিবেশিত থাকে।

ইতিহাস

খ্রিষ্টপূর্ব ৪০০ শতকে রেসিপি বই প্রথম লেখা হয় প্রাচীন গ্রিসে। হরেক রকম গ্রিক রান্না নিয়ে লেখা ওই রান্নার বইটি লেখেন মিথাকাস নামের এক ব্যক্তি। ‘সিসিলিয়ান কুক’ নামের ওই বইটি এতটাই জনপ্রিয় হয়েছিল যে তার একটি সংস্করণে মুখবন্ধ লেখেন দার্শনিক প্লেটো। ওই সময়টায় এমনিতেই সিসিলীয় খাবার ছিল দারুণ মুখরোচক ও জনপ্রিয়। জলপাইয়ের তেল, পনির প্রভৃতি ব্যবহার করে সিসিলীয় খাবার তৈরির প্রক্রিয়াটিই ছিল অসম্ভব মুখরোচক। মিথাকাসেরই সমসাময়িক এক ব্যক্তি টার্পসিওন গ্রিসে একটি রান্নার স্কুল খুলেছিলেন। তিনি নিজেও একটি রান্নার বই লিখেছিলেন। যার নাম গ্যাস্ত্রোনমি। বলা হয় গ্যাস্ত্রোনমি খুব সম্ভব পৃথিবীর প্রথম রান্নার বই, যা দিয়ে রান্না শেখানো হতো আগ্রহীদের।

 সুস্বাদু সব বাংলার খাবার

 

আম পোলাও

aam-pulao-050711-p-alo

উপকরণ: বাসমতী চাল ২ কাপ, ঘি ৫ চামচ, আদা-রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, লবঙ্গ ৪টি, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, আম খোসা ছাড়িয়ে চটকে নেওয়া ১ কাপ, পাকা ও কিছুটা শক্ত আমের টুকরা ১ কাপ, মরিচ ৪টি, লবণ স্বাদমতো, কালিজিরা ভাজা সাজানোর জন্য।

প্রণালি: চাল ধুয়ে তিন কাপ পানিতে ১৫ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন। কড়াইয়ে ঘি নিয়ে তাতে পেঁয়াজ সোনালি করে ভেজে নিন। এটি আলাদা করে রাখুন। কড়াইয়ের ঘিতে মসলা ছেড়ে দিন। চটকানো আম আর লবণ দিন। এবার পানিসহ চাল দিয়ে অল্প আঁচে সেদ্ধ করুন। হয়ে গেলে এর ওপরে আমের টুকরা ও কালিজিরা ছড়িয়ে পরিবেশন করুন।

 

মোরগ পোলাও

morog-pulao-160811-p-alo

উপকরণ: হাড়সহ মোরগের মাংস (বড় টুকরা করা) ২ কেজি, গরম ও তরল দুধ ২ কাপ, আদাবাটা ১ টেবিল-চামচ, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, কাঁচা মরিচবাটা ১ টেবিল-চামচ, কাঁচা মরিচ (আস্ত) ৫-৬টি, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, গরম মসলার গুঁড়া ১ চা-চামচ, লবণ স্বাদমতো, তেল ১ কাপ, টক দই ৪ টেবিল-চামচ।
মসলা ও মোরগের স্টক: পানি দেড় লিটার, মোরগের হাড় ৪-৫ টুকরা, শাহি জিরা আধা চা-চামচ, এলাচ (থেঁতো করা) ৪টি, লবঙ্গ ১০-১২টি, গোল মরিচ ১২-১৪টি, তেজপাতা ২টি, দারচিনি ৪ টুকরা। সব উপকরণ জ্বাল দিয়ে পানি দেড় লিটার থেকে ১ লিটার করে ছেঁকে নিতে হবে।
পোলাও: পোলাওয়ের চাল ৫০০ গ্রাম, পেঁয়াজ বেরেস্তা ১ কাপ, গুঁড়ো দুধ ১ কাপ, কিশমিশ ও বাদামের কুচি ১ টেবিল-চামচ, আলুবোখারা ৭-৮টি, ঘি ১ কাপ, লবণ স্বাদমতো, মাওয়া (গুঁড়া করা) আধা কাপ।

প্রণালি: মাংস ধুয়ে দই ও বাটা মসলা মাখিয়ে ১ ঘণ্টা মেরিনেট করে রাখতে হবে। সসপ্যানে তেল দিয়ে পেঁয়াজের কুচি একটু ভেজে মাখানো মাংস দিয়ে ভালো করে কষিয়ে সেদ্ধ করতে হবে এবং অন্য একটি পাত্রে তুলে রাখতে হবে।
চাল ধুয়ে পানি ঝরাতে হবে। মাংস রান্না করার সসপ্যানে মুরগির স্টক দিয়ে তাতে গুঁড়ো দুধ, গরম মসলা ও চাল দিয়ে নাড়তে হবে, যেন সব দিকের চাল সমান তাপ পায়। চাল ফুটে উঠলে কিশমিশ, বাদাম কুচি, আলুবোখারা, লবণ, পেঁয়াজ বেরেস্তা দিয়ে ঢেকে দমে রাখতে হবে। ১০ মিনিট পর ঢাকনা খুলে রান্না করা মাংস সাজিয়ে নিচ থেকে কিছু পোলাও ও মাওয়া দিয়ে ঢেকে আরও ১৫ মিনিট দমে রাখতে হবে। সবশেষে সার্ভিং ডিশে সাজিয়ে পরিবেশন করা যায় মজাদার মোরগ পোলাও।

 

ভুনা মাংস

bhuna-mangsho-251011-p-alo

উপকরণ: গরুর মাংস (হাড়ছাড়া ছোট করে কাটা) ১ কেজি, পেঁয়াজ মোটা করে কাটা ২-৩টি, আদাবাটা ১ টেবিল-চামচ, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, মরিচের গুঁড়া ১ চা-চামচ, হলুদের গুঁড়া আধা চা-চামচ, ধনে ও জিরার গুঁড়া আধা চা-চামচ, গরম মসলা (এলাচ-দারচিনি-লবঙ্গ) ২টি করে, তেজপাতা ২টি, টক দই ২ টেবিল-চামচ, সয়াবিন তেল ১ কাপ, পেঁয়াজ চিকন করে কাটা বা কুচি ২ কাপ, শুকনা মরিচ ও কালো গোল মরিচ আস্ত ৪-৫টি, বেরেস্তা ২ টেবিল-চামচ।

প্রণালি: মাংস ভালো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে চিপে নিন। পেঁয়াজ চিকন কাটা, শুকনা মরিচ, বেরেস্তা ও বাকি সব উপকরণ অল্প তেল দিয়ে মাখিয়ে আধা ঘণ্টা রেখে দিন। এবার চুলায় ঢাকনা দিয়ে একটি সসপ্যানে মাখানো মাংস বসিয়ে দিন এবং মাঝেমধ্যে নেড়ে দিন। সেদ্ধ হয়ে পানি শুকিয়ে মাখা মাখা হলে নামিয়ে নিন। এবার অন্য একটি ফ্রাইপ্যানে তেল গরম করে পেঁয়াজকুচি, শুকনা মরিচ, গোলমরিচ ও মাংস দিন। বারবার নাড়াচাড়া করে ভুনতে থাকুন। তেল ওপরে উঠলে বেরেস্তা ছড়িয়ে দিয়ে নামিয়ে নিন। এটি পোলাও, ভাত, পরোটা, লুচি এমনকি খিচুড়ি দিয়েও খেতে পারেন।

শুকানো মাংস ভুনা

shukno-mangsho-vhuna-061211-p-alo

উপকরণ: মাংস ১ কেজি, হলুদ সামান্য, লবণ আন্দাজমতো।

প্রণালি: মাংস ধুয়ে পানি শুকিয়ে হলুদ আর লবণ মাখিয়ে তারে গেঁথে রোদে শুকাতে হয়। রোদে দেওয়ার সমস্যা হলে চুলার ওপর তার ঝুলিয়ে রেখে শুকানো যায়। রান্নার দুই ঘণ্টা আগে একটু গরম পানিতে ভিজিয়ে রেখে তারপর তুলে ছেঁচে নিতে হয়।

মাংস ভুনা: উপকরণ: মাংস ১ কাপ, পেঁয়াজ ১ কাপ, শুকনা মরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ, হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ, জিরা বাটা আধা চা-চামচ, এলাচ-দারচিনি গুঁড়া ১ চা-চামচ, তেল আধা কাপ, লবণ স্বাদমতো, আদা বাটা ১ চা-চামচ, রসুন বাটা আধা চা-চামচ।

প্রণালি: কড়াইতে তেল দিয়ে পেঁয়াজ হালকা ভেজে সব মসলা দিয়ে কষিয়ে মাংস ছেঁচা দিয়ে অল্প আঁচে একদম কষিয়ে নিতে হবে। ভুনা ভুনা হলে নামিয়ে নিতে হবে।

 

হাঁসের রোস্ট

hasher-roast-290108-p-alo

উপকরণ : মাঝারি আকারের হাঁস ১টি। আদাবাটা ১ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ চা চামচ, পেঁয়াজ কিমা আধা কাপ, দারুচিনি ৪ টুকরা, এলাচ ৪টি, লবঙ্গ ৪টি, তেজপাতা ২টি, সাদা গোলমরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, গরম মসলার গুঁড়া আধা চা চামচ, পেঁয়াজ বেরেস্তা ৪ টেবিল চামচ, টমেটো সস ৪ টেবিল চামচ, টক দই ৪ টেবিল চামচ, ভাজার জন্য তেল প্রয়োজনমতো।

প্রণালী :

১. হাঁস ভালোভাবে পরিষ্কার করে গলার হাড় কেটে বাদ দিয়ে ২ টেবিল চামচ টমেটো সস, লবণ হাঁসের গায়ে ও পেটের ভেতর ভালো করে মেখে দুই পা একসঙ্গে করে সুতা দিয়ে বেঁধে হাঁসের গায়ে ময়দা লাগিয়ে গরম ডুবো তেলে সোনালি রং করে ভেজে উঠাতে হবে।

২. আধা কাপ তেল গরম করে আদা, রসুন, পেঁয়াজ ভুনে টক দই, লবণ, তেজপাতা, গরম মসলা দিয়ে আরও কিছুক্ষণ ভুনে আস্ত ভাজা হাঁস অল্প জ্বালে কিছুক্ষণ ভুনে ডুবো পানিতে দিয়ে হাঁস রান্না করতে হবে।

৩. হাঁস সিদ্ধ হয়ে এলে গোলমরিচ গুঁড়া, গরম মসলার গুড়া বাকি টমেটো সস, ঘি, চিনি, কিছু বেরেস্তা, কাঁচামরিচ, কিশমিশ দিয়ে কিছুখন চুলায় নাড়াচাড়া করে নামতে হবে।

 

হাঁসের মাংসের কালিয়া

p1250915_44727

উপকরণ:

– একটা হাঁস, এক কেজি বা বেশি (চমড়াসহ)

– পেঁয়াজ কুচি হাফ কাপের বেশী

– দারুচিনি এক ইঞ্চি সাইজের ৩/৪ পিস

– আদাবাটা দুই টেবিল চামচ

– রসুনবাটা দেড় টেবিল চামচ

– লাল মরিচ গুঁড়া এক চা চামচ (ঝাল বুঝে)

– হলুদ গুঁড়া এক চা চামচের কিছু কম

– পরিমাণমতো লবণ

– পরিমাণমতো তেল (বা হাফ কাপের কম)

– গরম পানি পরিমাণমতো

 

বিশেষ মসলা মিক্স গুঁড়া:

 

নিচের মসলাগুলো কড়াইতে টেলে গুঁড়া করে নিতে হবে:

– জয়ত্রী সামান্য

– জিরা দুই চিমটি

– এলাচি মাঝারি ৪/৫ টা

– লবঙ্গ ৮/৯ টা

– শুকনা মরিচ ৩/৪ টা মাঝারি

– মেথি দুই চিমটি

– তেজপাতা বড় একটা

– পাঁচফোড়ন দুই চিমটি

– গোলমরিচ গুঁড়া দুই চিমটি

প্রণালী:

কড়াইতে তেল গরম করে প্রথমে পেঁয়াজ কুচি দিন, সঙ্গে দিন সামান্য লবণ এবং দারচিনি। ভাজুন, আগুন মাধ্যম আঁচে রাখুন। পেঁয়াজ কুচি হলদেটে হয়ে এলে আদা ও রসুন বাটা দিন এবং ভাজুন।

এবার লাল মরচ গুঁড়া এবং হলুদ গুঁড়া দিন। এক কাপ পানি দিন এবং মিশিয়ে নিন। ভাল করে কষিয়ে তেল উপরে উঠিয়ে নিন। তেল উপরে উঠে গেলে ধুয়ে রাখা হাঁসের মাংস দিয়ে দিন। মিশিয়ে নিন। আগুন মাধ্যম আঁচে থাকবে। কিছুক্ষণ পর এককাপ গরম পানি দিন এবং নেড়ে মিশিয়ে নিন।

মাংস নরম না হলে আরও এক কাপ গরম পানি দিতে হবে এবং আগুন মাধ্যম আঁচে রেখে ঢাকনা দিন। এবার বিশেষ মসলা মিক্স দিয়ে দিন এবং ভাল করে নাড়িয়ে মিশিয়ে নিন। ঢাকনা দিয়ে মাঝারি আঁচে রাখুন আরও কিছু সময়।

ঝোল কেমন রাখবেন সেটা আপনি নিজেই সিদ্ধান্ত নিন। চুলা থেকে নামিয়ে কিছু সময়ের জন্য রাখুন। সাদা ভাত, পোলাও, খিচুড়ি বা পরোটার সঙ্গে পরিবেশন করুন।

 

মোরগের রোস্ট

morog-roast-121211-a-desh

উপকরণ : মোরগ ৩টি, পেঁয়াজ কুচি ২ কাপ, তেল ২ কাপ, টক দই আধা কাপ, আদা বাটা ৩ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, পোস্তের দানাবাটা ১ টেবিল চামচ, জায়ফল বাটা কোয়ার্টার চামচ, এলাচ ও দারুচিনি বাটা ১ চা চামচ, টমেটো সস ২ টেবিল চামচ, লেবুর রস ২ চা চামচ, লবণ ১ টেবিল চামচ, পেঁয়াজ বাটা আধা কাপ, চিনি ১ চা চামচ, কাঁচামরিচ ৮টি, হলুদ গুঁড়ো আধা চা চামচ, মরিচ গুঁড়ো ১ চা চামচ।

প্রণালী

: মোরগ ৪ টুকরো করে নিতে হবে। কাঁচামরিচ বাদে সব উপকরণ মিশিয়ে ১ ঘণ্টা রেখে দিতে হবে। তারপর হাঁড়িতে মোরগ দিয়ে (মসলাসহ) আঁচ বাড়িয়ে দিতে হবে। ১০ মিনিট পর আঁচ কমিয়ে চুলায় ১ ঘণ্টার মতো বসিয়ে রাখতে হবে। তেল উপরে উঠে এলে আরও কিছুক্ষণ ভাপে রাখতে হবে। মসলা মাখা মাখা হয়ে এলে ডিশে সুন্দর করে সাজিয়ে পরিবেশন করতে হবে।

মুরগির ঝোল

murgir-jhol-01062010-p-alo

উপকরণ: মুরগি ১টি (ছোট করে কাটা), আলু ৪টি (টুকরা করা), পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, আদা বাটা ১ টেবিল চামচ, রসুন চাকা করে কাটা ১ টেবিল চামচ, জিরা বাটা ১ চা চামচ, শুকনা মরিচ বাটা ১ টেবিল চামচ, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, দারচিনি ৪ টুকরা, এলাচ ৪টি, গরম মসলা গুঁড়া ১ চা চামচ, লবণ স্বাদমতো, তেল আধা কাপ, সরিষার তেল সিকি কাপ, টমেটো সস ২ টেবিল চামচ, তেজপাতা ২টি।

প্রণালি: প্রথমে পেঁয়াজ কুচি ভেজে লাল হলে অর্ধেক উঠিয়ে রাখতে হবে। বাকি অর্ধেকের মধ্যে সব মসলা কষিয়ে মুরগি দিয়ে কষাতে হবে। এতে আধা কাপ পানি দুবার দিয়ে কষাতে হবে। সরিষার তেলে আলু সামান্য লবণ দিয়ে হালকা করে ভেজে মাংসের মধ্যে দিয়ে একটু কষিয়ে ঝোল দিতে হবে। সেদ্ধ হয়ে এলে গরম মসলা গুঁড়া ও বেরেস্তা দিয়ে আস্তে আঁচে ১০ মিনিট রেখে নামিয়ে নিতে হবে।

 

আস্ত ইলিশ ভাজা

asto-ilish-vaja-110412-sam

উপকরণ : মাঝারি আকারের একটি ইলিশ মাছ। হলুদ গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, কাঁচামরিচ ও ধনেপাতা বাটা ১ টেবিল চামচ, লবণ স্বাদ অনুযায়ী এবং ভাজার জন্য তেল।

প্রস্তুত প্রণালি : ইলিশ মাছ কেটে ধুয়ে ভালো করে পরিষ্কার করে নিন। এখন আস্ত ইলিশে সব বাটা ও গুঁড়া মসলা এবং লবণ মাখিয়ে গরম গরম তেলে এপিঠ ওপিঠ মচমচে করে ভেজে পরিবেশন করুন।

 

রুই মাছের মাথা ভুনা

rui-macher-matha-vhuna-190313-p-alo

উপকরণ : একটি বড় রুই মাছের মাথা ও লেজের অংশ ১ কেজি, আদা বাটা ১ চা-চামচ, রসুন বাটা ১ চা-চামচ, জিরা বাটা ১ চা-চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ, গোলমরিচ গুঁড়া আধা চা-চামচ, দারুচিনি ২ টুকরা, মেথি গুঁড়া সামান্য, এলাচ ২টি, লবঙ্গ ২টি, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, কাঁচামরিচ ফালি ৪-৫টি, ধনে পাতা কুচি ১ টেবিল চামচ, তেল পৌনে ১ কাপ, লবণ স্বাদমতো, টমেটো কুচি আধা কাপ, তেজপাতা ২টি, টমেটো সস ২ টেবিল চামচ।

প্রণালি : মাছ ধুয়ে পানি ঝরিয়ে ছোট টুকরা করে রাখতে হবে। কড়াইয়ে তেল গরম করে পেঁয়াজ ঘিয়া রং করে ভেজে সব বাটা মসলা ও গুঁড়া মসলা, গরম মসলা দিয়ে কষিয়ে মাছ দিয়ে ভুনতে হবে। লবণ, টমেটো দিয়ে ঢেকে দিয়ে অল্প পানিতে ৩০ থেকে ৩৫ মিনিট রান্না করতে হবে। মাঝেমধ্যে নেড়ে দিতে হবে। পানি দেওয়া যাবে না। তেলের ওপর এলে টমেটো সস দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে কাঁচা মরিচ, ধনে পাতা দিয়ে নামাতে হবে।

ছোট মাছের পাতলা ঝোল

choto-mach-061009-p-alo

উপকরণ: বাতাসি বা কাজলি মাছ ৫০০ গ্রাম, পেঁয়াজ কুচি এক কাপ, পেঁয়াজ বাটা এক টেবিল চামচ, রসুন বাটা এক চা-চামচ, হলুদ গুঁড়ো আধা চা-চামচ, মরিচ গুঁড়ো আধা চা-চামচ, কাঁচা মরিচ তিন-চারটি, ধনেপাতা দুই টেবিল চামচ, ভাজা জিরার গুঁড়ো আধা চা-চামচ, টমেটো কুচি একটি, তেল পরিমাণমতো, লবণ স্বাদমতো।

প্রণালী:  মাছে লবণ, হলুদ গুঁড়ো ও মরিচ গুঁড়ো মেখে ১০ মিনিট রেখে দিতে হবে। ফ্রাইপ্যানে তেল দিয়ে তাতে কাটা পেঁয়াজ দিন। পেঁয়াজ একটু ভাজা ভাজা হলে সব মসলা, লবণ ও সামান্য পানি দিয়ে কষুন। মসলা কষা হলে তাতে বড় এক কাপ পানি দিন। অন্য একটি ফ্রাইপ্যানে তেল দিয়ে মাছ একটু লাল করে ভাজুন। এবার ভাজা মাছগুলো ফুটন্ত ঝোলের মধ্যে দিন। টমেটো ও ধনেপাতা দিন, কাঁচা মরিচ দিয়ে একটু ঝোল রেখে নামিয়ে ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

 

ছোট মাছের চচ্চরি

choto-macher-chorchori-11102011-jugantor

যা লাগবে : যে কোন ছোট মাছ ২৫০ গ্রাম, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, কাঁচামরিচ ফালি ৮টা, মরিচ, হলুদ, ধনে গুঁড়া আধা চামচ করে, ধনেপাতা কুচি ১ টেবিল চামচ, তেল আধা কাপ, লবণ ও পানি পরিমাণ মতো।

যে ভাবে করবেন : মাছ কেটে ধুয়ে নিন। এবার হাঁড়িতে সব মশলা মেখে তাতে মাছ দিয়ে হালকাভাবে মাখুন। পরিমাণ মতো পানি দিয়ে চুলায় বসান। পানি শুকিয়ে মাখা মাখা হলে নামিয়ে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

 

দোপেঁয়াজা ডিম

dopeyaja-dim-02062006-s2000

উপকরণ: ডিম নরম সেদ্ধ ৮টি, পেঁয়াজ মোটা স্লাইস ১ কাপ, হলুদ গুঁড়ো ১ চা চামচ, মরিচ গুঁড়ো ১ চা চামচ, আদা বাটা কোয়ার্টার চা চামচ, গোলমরিচ গুঁড়ো কোয়ার্টার চা চামচ, কাঁচামরিচ ৬টি, ধনেপাতা বা পুদিনা পাতা কুচি ১ টেবিল চামচ, তেল আধা কাপ, লবণ স্বাদমতো।

প্রণালী: ডিমের ওপর লম্বা করে হালকাভাবে ৩-৪টি আঁচড় কাটুন। পেঁয়াজের সঙ্গে বাটা মসলা ও লবণ মেশান। কড়াইয়ে তেল গরম করে পেঁয়াজ ছেড়ে নাড়তে থাকুন। পেঁয়াজ নরম হলে কোয়ার্টার কাপ পানি দিয়ে ভাজুন। কাঁচামরিচ, ধনেপাতা ও ডিম দিয়ে আস্তে আস্তে নাড়ুন যাতে ডিমে মসলা লাগে। ২ মিনিট পর নামিয়ে রাখুন। এরপর পরিবেশন করুন।

 

আলু বড়া

aloo

উপকরণ : ৪ টি মাঝারি মাপের আলু খোসা ছাড়িয়ে রাখা, আধ চাচামচ ধনেগুড়ো, ১ চাচামচ শুকনো মরিচ গুঁড়ো, ২ টেবিলচামচ ধনেপাতাকুচি, ১ চাচামচ লবণ, তেল ভাজার জন্য
ব্যাটার তৈরির জন্য : ২০০ গ্রাম বেসন, আধ চাচামচ লবণ, আধ চাচামচ মরিচ গুঁড়ো, আধ চাচামচ রসুন বাটা, আধ চাচামচ আদা কুচি, ১ টেবিলচামচ ধনেপাতাকুচি, ৪০০ মিলি পানি

প্রণালী : আলু সেদ্ধ করে নিন। এবার সেদ্ধ আলু চটকে তার সঙ্গে সব উপকরণ দিয়ে মেখে নিন। এবার একটা আলাদা বাটিতে ব্যাটার তৈরি করতে হবে। বেসনের সঙ্গে ব্যাটার তৈরির সব উপকরণ মিশিয়ে অল্প অল্প পানি দিয়ে মেশাতে থাকুন। মসৃণ পেস্ট তৈরি করে নিন। এবার কড়াইতে বেশি করে তেল দিন। আলুর মিশ্রণ থেকে ছোট ছোট বল গড়ে নিন। এবার এই বল গুলিতে ব্যাটারে ডুবিয়ে ধীরে ধীরে তেলে ছেড়ে দিন। এবার বল গুলিকে কড়া করে ভেজে নিন। বাদামী রঙ না ধরা পর্যন্ত ডিপ ফ্রাই করুন। এবার বলগুলি থেকে অতিরিক্ত তেল ঝড়িয়ে নিয়ে নিন। ইচ্ছে মতো গার্নিশ করে গরম গরম পরিবেশন করুন মজাদার আলুর বড়া।

Likes(1)Dislikes(0)

Click Here to get update news always
প্রতি মুহুর্তের আপডেট পেতে এখানে ক্লিক করন
আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন